পোর্টফোলিও কি? কিভাবে পোর্টফোলিও তৈরি করতে হয়?

পোর্টফোলিও কি করলে কেন প্রয়োজন এবং কিভাবে একটি আকর্ষণীয় পোর্টফোলিও তৈরি করা যায় সেই সম্পর্কে আমরা বিস্তারিত আলোচনা করবো এই আর্টিকেল।  আবারো  মনস্টার বাংলা এর পক্ষ থেকে আপনাদের সবাইকে স্বাগতম।  প্রথমেই ধন্যবাদ দিয়ে শুরু করছি কারণ আপনি আপনার ক্যারিয়ারকে আরো এগিয়ে নেওয়ার জন্য ওপেন করেছে।

আপনি যেই পেশারি লোক হন না কেন অবশ্যই আপনার কাজের দক্ষতা একটি রিপোর্ট প্রয়োজনীয় হয়ে থাকে যে কোন পর্যায়।  যদি আপনি নতুন কোনো কোম্পানিতে জয়েন করতে চান অথবা ক্যারিয়ারের শুরুতে কোন একটি কোম্পানিতে চাকরির জন্য আবেদন করেন তবে অবশ্যই আপনার পোর্টফোলিও পূর্বের অভিজ্ঞতা দেখতে চাই।  আপনি যদি পূর্ব অভিজ্ঞতা এই পূর্বঅভিজ্ঞতা করতে পারে তবে আপনাকে কোম্পানি  থেকে নিয়োগ দিতে দ্বিধাবোধ করবে।  কারণ আপনি জানেন কিনা তারা সেই সম্পর্কে অবহিত থাকবে না।  একটি ইন্টারভিউ মাধ্যমে কখনোই কোন পার্কে যাচাই-বাছাই করা সম্ভব হয় না তাই সর্বক্ষেত্রেই পোর্টফোলিও পূর্ব অভিজ্ঞতা একটি রিপোর্ট প্রয়োজনী হয়ে থাকে।

এবার আসল কথায় আসা যাক বিশেষভাবে পোর্টফোলিও ফ্রিল্যান্সারদের জন্য বিশেষ বিশেষ ভাবে প্রয়োজন বলা চলে এ ছাড়া অন্যান্য শ্রেণীর প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি।  তবে পোর্টফোলিও মানে আমরা বুঝি যে  ফ্রিল্যান্সারদের আগের পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতার একটি ডাটা।  যারা ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জানেন না এটা সম্পূর্ণ অসম্ভব বলা চলে কারন হল আমরা যারা ফ্রিল্যান্স আছি তাদের কাজ পেতে হলে অবশ্যই পোর্টফোলিও জমা দিতে হয় কিংবা ক্লিনটন পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতার কথা জানতে চাই।  তাই খুব সহজ ভাষায় বলতে গেলে প্রতিটি ফ্রিল্যান্সা দের অবশ্যই সুন্দর একটি পোর্টফোলিও খুবই গুরুত্বপূর্ণ যা আপনাকে ক্যারিয়ারে আরো বেশি এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে।

Table of Contents

পোর্টফোলিও কি?

পোর্টফোলিও কি এবার ইহার বিস্তারিত আলোচনা করা যায়। পোর্টফলিওর মানে বলা যায় যে আপনার পূর্ববর্তী কাজের কিংবা দক্ষতা ভান্ডার যেখানে আপনার পড়া কাজগুলো মানুষদের জন্য Visible থাকবে।

অর্থাৎ আপনি যে কাজগুলো করেছেন তার পপি গুলো এখানে ডেমো উপস্থাপন করবেন। ধরুন কম বাজেট কিংবা বেশি বাজেটের একজন ক্লায়েন্ট আপনাকে খুব কঠিন অফ দিল কিংবা আপনি তাকে মেসেজ করলে যে আমি তোমার কাজটি করতে চাই সেটা হোক সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে কিংবা ইমেইলের মাধ্যমে অথবা মার্কেটপ্লেস এর মাধ্যমে।  যখন আপনার সাথে ক্লায়েন্টের কমিউনিকেশন হবে  তখন তার প্রোজেক্টের জন্য আপনাকে কিছু কাজ দেওয়ার পূর্বে অবশ্যই আপনার পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতার কথা জানতে চাইবে। আপনি যখন আপনার পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতার কথা জানাবেন তাকে  সেই মুহূর্তে অবশ্যই আপনার পূর্ববর্তী কাজের নমুনা দেখতে চাইবে আপনি যদি ঠিকঠাক ভাবে লাইটের সামনে প্রেজেন্ট করতে পারে তবেই একমাত্র আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। আর যদি আপনি আপনার পোর্টফোলিও না শেয়ার করতে পারেন তবে কখনই আপনাকে বিশ্বাস করে হলেও কাজটি দিতে চাইবে না তাই অবশ্যই আপনার একটি সুন্দর পোর্টফলিও প্রয়োজন বা আপনার পূর্ববর্তী তাদের সমষ্টি  হিসেবে থাকবে।

যাই হোক পোর্টফোলিও ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনি ইতিমধ্যে যে সমস্ত কাজগুলো সম্পন্ন করেছেন সেগুলো একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কিংবা গুগোল ড্রাইভ অথবা কোন ক্লাউডের মাধ্যমে তার সংরক্ষণ করার চেষ্টা করুন তবে আপনি যদি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তা সংরক্ষন করুন তবে সেটি ইউজারদের জন্য কিংবা ক্লায়েন্টদের জন্য বেশ ভালো একটি প্রভাব ফেলবে যাতে করে তারা খুব সহজভাবে আপনার উপস্থাপনা কৃত সেই সমস্ত কাজ গুলো দেখতে পারেন। আপনি এখানে পূর্ববর্তী ক্লায়েন্টের কাজ কিংবা আপনার ডায়মন কাজগুলো এখানে উপস্থাপন করতে পারেন যেসব কাজগুলো মোটামুটি কোয়ালিটিফুল এমন সমস্ত কাজ।তো যাই হোক পোর্টফোলিও কি এই সম্পর্কে কিছুটা আপনি অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন আশা করছি।

পোর্টফোলিও কেন প্রয়োজন?

পোর্টফোলিও এর গুরুত্ব নতুনভাবে আর কিছু বলার নেই যদি আপনি পোর্টফোলিও কি সম্পর্কে জেনে থাকেন। আপনার যদি পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকে কাজের ক্ষেত্রে তবে কাজ শিখার সাথে সাথে একটি পোর্টফোলিও বিল্ড আপ করুন। আর যদি পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে থাকে তবে পূর্বের কাজসমূহ দিয়ে একটি পোর্টফোলিও তৈরি করে ফেলুন।  প্রথম ছাড়া কোন লাইন আপনাকে হায়ার করবে না যদি হারে তাহলে আপনার বুঝে নিতে হবে যে আপনি আকাশের চাঁদ হাতে পেয়ে গিয়েছেন খুব সহজে।  কথাটি হয়তো মজার ছলে বললাম কিন্তু কথা কি সত্য। ধরুন আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এর সার্ভিস দিবেন কোন একটি কোম্পানিতে কিংবা কোন পারসোন কে।  অবশ্য সেই কোম্পানি ব্যক্তি কে ব্যক্তিকে আপনার স্টাডি স্ট্রাটেজি সম্পর্কে অবহিত করতে হবে।  কিভাবে আপনি তাদেরকে আরো বেশি করবেন কিভাবে তার প্রোডাক্টগুলো সেল হবে ইত্যাদি ইত্যাদি নিয়ে তাকে আপনার প্রপোজাল পেশ করতে হবে।  আপনি যদি সঠিক যুক্তি দিয়ে তাকে মার্কেটিং স্ট্রাটেজি সম্পর্কে জানাতে পারেন তবে হয়তো আপনি তার থেকে কাজটি পেয়ে যাবেন।  তবে তিনি পুরোপুরি তাতে খুশি হবেন না বলেই ধারণা করা যায়।  যদি আপনি একটা পোর্টফলিওর মাধ্যমে আপনি পূর্ববর্তী যে সমস্ত মার্কেটিংয়ের কাজ করেছেন সেল জেনারেট করেছেন কিংবা কোন কিওয়ার্ড রাঙ্ক করেছেন এসইওর ক্ষেত্রে এবং সেটি যদি চুপ করতে পারেন আর্থার রিপোর্টটি সে ক্লায়েন্টের সামনে পেশ করতে পারেন তবে আপনি ধরে নিতে পারেন যে আপনার প্রপোজাল দেওয়ার সাথে সাথে 95 শতাংশ হয়ে যাবে।  এবং আপনি খুব সহজে কাজটি পেয়ে যাবেন। তাই বলা চলে যে পোর্টফোলিও ছাড়া আপনি সামনের দিকে মুভ করাটা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

আপনি যদি ফ্রিল্যান্সার হয়ে থাকেন বা ফ্রিল্যান্সিং করতে চান যখন আপনি মার্কেটপ্লেসে বিড করতে যাবেন তখন অবশ্যই আপনাকে পোর্টফোলিও বা আগের কাজের স্যাম্পল জমা দিতে হবে যদি আপনি স্যাম্পল জমা না দিতে পারেন তবে অবশ্যই আপনার  বিডটি গ্রহণযোগ্য হবে না। 

আর যদি  আপনার একটি সুন্দর পোর্টফলিও থেকে থাকে বিট করার সাথে আপনি যদি আপনার পরবর্তী কাজের ডেমো কিংবা নমুনা সামনে পেশ করতে পারেন তবে আপনার কাজগুলো ভালো খারাপ বুঝি খুব দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।   এবং আপনার কাজটি পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।  তাই আমরা জোর দিয়ে বলতে পারি যে একটি পোর্টফোলিও থাকা অবশ্যই অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ।

কিভাবে পোর্টফোলিও তৈরি করতে হয়?

আমরা ধরে নিলাম আপনি পোর্টফোলিও কি পোর্টফোলিও কেন প্রয়োজন সম্পর্কে অলরেডি জেনে ফেলেছেন।  হয়তো জানতে চাই একটি পোর্টফোলিও তৈরি করতে পারেন। পোর্টফোলিও কিভাবে তৈরি করা যায় তা নিম্নে বিস্তারিত আমরা আলোচনা করবো তবে তার আগেই বলে নিচ্ছি পোর্টফোলিও কত প্রকার।

পোর্টফোলিও প্রকার কিংবা ধরন দুই ভাবে বলা যায়

  • ভার্চুয়ালি পোর্টফোলিও/অনলাইন পোর্টফোলিওঃ 
  •  ফিজিক্যালি পোর্টফোলিও/প্রিন্টেড পোর্টফোলিওঃ

ভার্চুয়ালি পোর্টফোলিও/অনলাইন পোর্টফোলিওঃ 

ভার্চুয়াল পোর্টফলিও বলতে আমি বুঝিয়েছি যা বুঝতে হবে বা যেটা ধরা যায় না শুধুমাত্র ছোঁয়া যায় যেমন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পোর্টফলিও শেয়ার করা। বিশেষভাবে আপনি যখন ফ্রিল্যান্সার হবেন কিংবা অলরেডি ফ্রীলান্সিং করছেন আপনার জন্য অবশ্যই প্রয়োজন হল ডিজিটাল বা ভার্চুয়াল পোর্টফোলিও।  কেননা পৃথিবী যে কোন ক্লায়েন্টের কাজ করতে হবে।  অবশ্য কোন ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট ফিজিক্যাল ভাবে প্রচলিত শেয়ার সম্ভব কখনোই হবে না।  তাই ভার্চুয়াল পোলিও তৈরীর ক্ষেত্রে আপনি একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনার পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতা কাজ সমূহ প্রেজেন্ট করতে পারেন এবং সেই ওয়েবসাইটটি ক্লায়েন্টের কাছে শেয়ার করে আপনার কাজের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জানাতে পারেন।

ফিজিক্যালি পোর্টফোলিও/প্রিন্টেড পোর্টফোলিওঃ

যারা কিনা ফ্রিল্যান্সার নয় তারা কি করে বানাতে পারবে না?  অবশ্যই যে কোন মানুষ সেটা ডিজিটাল হোক কিংবা ফিজিক্যাল হোক। 

ফিজিক্যাল বলতে প্রিন্টেড  পোর্টফোলিও কে বোঝানো হয়। আপনি যখন ফিজিক্যালি কোন ক্লাসের সাথে সরাসরি প্রপোজাল দিতে যাবেন তখন আপনি প্রিন্টেড পোর্টফোলিও ব্যবহার করতে পারেন যেমন ধরেন যারা কাপড়ের বিজনেস করে তারা দেখা গেছে বিভিন্ন দোকান কিংবা শোরুমে গিয়ে তাদের প্রিন্টেড জামাকাপড় এর নমুনা আছে সেটি উপস্থাপন করে, সেটিও এক ধরনের পোর্টফোলিও। অর্থাৎ ফিজিক্যাল পোর্টফোলিও বলা চলে। এছাড়া যেহেতু বর্তমান সময়ে ইন্টারনেটের যুগ তাই ফিজিক্যাল পোর্টফোলিও নিয়ে সারাক্ষণ ঘোরাফেরা করা ইম্পসিবল স্থায়ী খুব সহজে আপনি একটি ডিজিটাল বা অনলাইন পোর্টফোলিও তৈরি করতে পারেন।

 কিভাবে অনলাইনে পোর্টফলিও তৈরির করবেন?

আপনি যদি অনলাইনে পোর্টফোলিও তৈরি করতে চান তবে আপনাকে কিছু টাকা ইনভেস্ট করতে হবে। অর্থাৎ আপনার একটি পার্সোনাল ওয়েবসাইট থাকা বাঞ্ছনীয়। ফ্রিতে আপনি অনেক জায়গা থেকে ওয়েবসাইট বানিয়ে নিতে পারবেন যেমনঃ wordpress.com, Blogger.com সহ অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে।  কিন্তু এতে করে আপনি প্রফেশনালভাবে ওয়েব সাইট তৈরি করতে পারবেন না।  প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে অবশ্যই ওয়েবসাইটের একটি নির্দিষ্ট নাম প্রয়োজন নামের ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে প্রফেশনাল ভাবে চুজ করতে হবে  অথবা আপনার নাম হতে পারে। প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করতে গেলে আপনার অবশ্যই ডোমেইন এবং হোস্টিং থাকা প্রয়োজন।

ডোমেইন কিংবা হোস্টিং আপনি বিদেশি কিংবা দেশি কোম্পানি থেকে খুব সহজে ক্রয় করতে পারেন।  আপনার কাছে যদি কার্ডের ব্যবস্থা না থাকে তবে আপনি রকেট কিংবা বিকাশ অথবা নগদ পেমেন্ট গেটওয়ের মাধ্যমে খুব সহজেই বাংলাদেশ থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং ক্রয় করে নিতে পারেন। 

ডোমেইন এর ক্ষেত্রে 650 টাকা থেকে 850 টাকা টাকার মধ্যে প্রথম বছরে কিনে নিতে পারবেন।  এরপর প্রতি বছরের জন্য আপনাকে সর্বোচ্চ ১০০০ কিংবা ১১০০ টাকার মতো পেমেন্ট করে ডোমেইন রিনিউ করতে হবে। পোস্টিং এর ক্ষেত্রে প্রতি বছরের জন্য ১১০০ থেকে ২০০০ টাকার মতো খরচ হবে। তবে আপনি অবশ্যই ভালো মানের হোস্টিং কেনার চেষ্টা করবেন।

 হোস্টিং সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়তে পারেনঃ হোস্টিং কি? হোস্টিং কত প্রকার?

আপনি যদি অল্প টাকা বাঁচাতে গিয়ে ডোমেইন এবং হোস্টিং দিয়ে ফ্রি ওয়েবসাইট করতে চান তবে বেশ বাধা-বিপত্তি চলে আসবে।  আপনার প্রবলেম গুলো বাড়বে এবং আপনি যে গানটি সিলেট করেছেন অবশেষে টি ব্রান্ড কিংবা আপনার নিজস্ব নাম অনুযায়ী পাওয়া অসম্ভব।  এবং আপনি যেই ওয়েবসাইটটিতে বেল করবেন সেটি নন প্রফেশনাল হিসেবে উপস্থাপিত হবে যা একজন ক্লায়েন্ট দেখার পর আপনাকে নন প্রফেশনাল হিসেবে ভেবে বসবেন। তাই অবশ্যই আপনি অল্প টাকায় ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনে আপনার ওয়েবসাইটটি সেটআপ করুন।

আপনার যখন ওয়েবসাইটের জন্য ডোমিন এবং হোস্টিং কেনা হয়ে যাবে তখনি আপনার প্রয়োজন হবে  আপনি কোন সিএমএস ব্যবহার করবেন।  তবে আপনি যদি হয়ে থাকেন কিংবা ইন্টারমিডিয়েট হয়ে থাকেন তবে আপনি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করতে পারেন।  পুরো পৃথিবী জুড়ে প্রায় 42  লাখেরও বেশি ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস সিএমএস গঠিত।

ওয়াডপ্রেস বেশ সহজ কন্ট্রোলিং আপনি খুব সহজেই পেজ কিংবা পোস্ট কিংবা ভিডিও অডিও খুব সহজে এড করে নিতে পারবেন। আপনি যদি অলরেডি চিন্তাভাবনা ফিক্সট করে ফেলেন যে আপনি ওয়ার্ডপ্রেস এই আপনার ওয়েবসাইটটি তৈরি করবেন তখন আপনার একটি ওয়ার্ডপ্রেস থিম এর প্রয়োজন হবে।  ফ্রিতে ওয়ার্ডপ্রেস থিম  পাওয়া যায়।  আপনি যদি প্রফেশনাল ভাবে আপনার তৈরি করতে চান তবে থিমফরেস্ট থেকে আপনার চাহিদা অনুযায়ী যেকোনো একটি সিম কিনে সেটির দ্বারা পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট তৈরী করে নিতে পারেন।  ইউটিউবে পোর্টফোলিও নিয়ে অনেক রকম ভিডিও পাবেন সেই ভিডিও  থেকে আইডিয়া নিয়ে আপনি খুব সহজে দেখে দেখে আপনার ওয়েবসাইটটি প্রফেশনাল ভাবে তৈরি  করতে পারবেন।

আপনার জন্য সাজেশন হিসেবে থাকবে খুব কম টাকায় যদি আপনার ওয়েবসাইটটি তৈরি করতে চান তবে HostRadium সাথে যোগাযোগ করে আপনার ওয়েবসাইটটি তৈরি করতে পারেন।

শেষ কথা

পোর্টফোলিও কি এবং কিভাবে পোর্টফোলিও তৈরি করতে হয় এবং এর প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে পুরোপুরি তুলে ধরার চেষ্টা করলাম। আশা করি পুরো পোস্টটি আপনার জন্য সহযোগী হবে। আপনার যোনী পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট তৈরি করতে কোন বাধা আসে কিংবা যদি কাজটি করতে না পারেন তবে কমেন্ট বক্সে আপনার মেসেজটি কমেন্ট করে রাখবেন আমাদের টিম যথাসম্ভব আপনাকে অতি দ্রুত সাহায্য করার চেষ্টা করবে আশা করি মনস্টার বাংলার সাথেই থাকবেন ধন্যবাদ আজকে এই পর্যন্ত।

আমাদের ফেইসবুক পেইজঃ Monster Bangla

4728dbbc5c6763f37c33f5ebb100ad9e?s=150&d=mm&r=g

Tanvir Brain

 themarketerbd@gmail.com  https://www.monsterbangla.com

We will be happy to hear your oughts

Leave a reply

Monster Bangla
Logo
Compare items
  • Total (0)
Compare
Shopping cart