শিক্ষা সফর অনুচ্ছেদঃ শিক্ষা সফরের অভিজ্ঞতা নিয়ে এসাইনমেন্ট ২০২২

জ্ঞান লাভের উপায় বা মাধ্যম হতে পারে দুটি। এক.  বই থেকে অর্জিত জ্ঞান, দুই. প্রাক্টিক্যালি অর্জিত জ্ঞান। প্রাক্টিক্যালি জ্ঞানের বিভিন্ন প্রকারের মধ্যে শিক্ষাসফর অন্যতম। গভীরভাবে বিশ্লেষণ করলে বুঝা  যায় যে অতীতে ইতিহাস লিখার প্রচলন ছিলোনা। যারা ইতিহাস চর্চা করতো তারা মুলত বেশিরভাগ বিদেশি পর্যটকদের উপর নির্ভরশীল ছিলো। এর থেকে বুঝা যায় সফরের গুরুত্ব কত।পরবর্তীতেতে কালের পরিক্রমায় পর্যটকদের সংখ্যা বাড়তেই থাকে এমনকি ইতিহাসের যত খুটিনাটি বিষয় আছে তা এ পর্যটকগন বের করে আনতে ভুমিকা রাখে। আমাদের দেশ বাংলাদেশেরও অনেক পুরোনো ইতিহাস নিয়ে তৈরি। এসব ইতিহাস জানতে বিদেশ থেকে অনেক পর্যটক আসে।

শিক্ষা সফরের গুরুত্ব

মানুষের জীবনকে বৈচিত্রময় করে গড়তে দেশ বিদেশে ঘুরে বেড়ানোর অনেক গুরুত্ব রয়েছে । নতুনকে জানার জন্যে নতুন আকর্ষনে মানুষ ছুটে বেড়ায় এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত। এতে মানুষের হৃদয় বড় হয় , জ্ঞানের পরিধি আরো বিস্তৃত হয়। এই কথা মাথায় রেখেই স্কুল, কলেজ, ভার্সিটি সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই সফরের আয়োজন করে আর এই প্রাতিষ্ঠানিক সফরগুলোকেই আমরা শিক্ষা সফর বলে থাকি। শিক্ষার্থীরা পাঠ্য পুস্তক পড়ে ইতিহাসে প্রসিদ্ধ অনেক জায়গা সম্পর্কে জানতে পারলেও বাস্তবে না দেখলে তা পরিপূর্নতা পায় না। শিক্ষা সফরের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী ভিন্ন পরিবেশের মানুষের জীবনযাপন ও সংস্কৃতি সম্পর্কে সরাসরি জানার সুযোগ পায়। মনে ঘুরপাক খাওয়া অনেক প্রশ্নের উত্তর তারা নিজেরাই পেয়ে যায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতি বছরই একটি করে শিক্ষা সফরের আয়োজন করে। 

শিক্ষা সফরের অভিজ্ঞতা নিয়ে এসাইনমেন্ট

শিক্ষা সফরের দিন প্রতিষ্ঠানের শ্রেনী কার্যক্রম বন্ধ করে রাখা হয় । এই দিনটি শুধু আনন্দ আর উপভোগের জন্যে সবাইকে মাতিয়ে রাখা হয়। শিক্ষার্থীরা টানা পড়াশুনার একঘেয়েমি থেকে বেরিয়ে এ দিনে একই সাথে ঘুরে বেড়ানো ও  সাংস্কৃতিক আনন্দ উপভোগ করার সুযোগ পায়। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষাসফরের দিন শিক্ষার্থীদের তাদের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জানার জন্য এসাইনমেন্ট দিয়ে থাকে। উক্ত এসাইন্টমেন্টে তাদের শিক্ষা সফরের অভিজ্ঞতা নিয়ে আলোচনা করতে বলা হয়ে থাকে। শিক্ষা সফরের এসাইনমেন্ট এর জন্য চারটি জিনিস প্রয়োজন।

তা হলোঃ

  1. ১.শিরোনাম
  2. ২.ধন্যবাদ জ্ঞাপন সুচনা
  3. ৩. বর্ননা
  4. ৪.উপসংহার

আজ আমি তেমনি একটি শিক্ষা সফরের এসাইন্টমেন্ট কিভাবে লিখতে হয় তার নমুনা আপনাদের জানাবো। আশা করি আপনারদের উপকার হবে।

শিক্ষা সফরের জন্য প্রস্তুতি কেমন হবে

আজকে আমার জীবনের শিক্ষা সফরের গল্প তুলে ধরবো। আমি তখন ১০শ্রেনির ছাত্র। আমার বিদ্যালয়ে শিক্ষা সফরের দিনতারিখ ঠিক করা হলো। আমাদেরকে বলা হলো গাজীপুর রিসোর্ট পার্কে নিয়ে যাবে। আমরা সব শিক্ষাথীর খুবই উৎফুল্ল ছিলাম কবে সে দিন আসবে। শিক্ষা সফরের আগের দিন রাতে আমি আমার ব্যাগে কিছু জামাকাপড়,পানির বোতল ও শুকনো খাবার ভরে রেডি করে রাখলাম।

শিক্ষা সফরের দিনের শুরুর  বণর্নাঃ

পরদিন শিক্ষা সফরের দিন সকাল বেলা স্কুলে পৌছে গেলাম। স্কুলে গিয়ে দেখি আমাদের জন্য বাস এসে বসে আছে । আমরা সবাই বাসে গিয়ে বসলাম।তারপর স্যার আমাদের সকালের নাস্তা দিলো। নাস্তা শেষ করার পর বাস ছেড়ে যাবার কিছু সময় আগে স্যার আমাদেরকে সফরের সতর্কতা বলে দিলেন।

সফরের বাসে শিক্ষাথীদের অভিজ্ঞতাঃ

আমাদের মোট সব শিক্ষার্থীদের জন্য ৩টি বাস ভাড়া করা হয়েছিলো। আমাদের বিদ্যালয় থেকে বাস রওনা শুরু করলো সকাল ১০টায়।বাস চালু করার পর থেকে সবাই বাসে গল্প,হইচই,কবিতা আবৃতি,মাইকে সবাই যে যার মতো উপস্থাপন করছিলাম। অনেকে জানালার বাহির দিয়ে আশে পাশের প্রাকৃতিক পরিবেশ দেখছিলো

গাজিপুর যাওয়ার মাঝপথে এক স্থানে বাস থামলো যেখান থেকে সবাই যার যার মতো করে খাবার কিনার সুযোগ পেলো। আবার বাস চলতে আরম্ভ করলে সবাই আবার হাসি,গল্পে,গানে আনন্দ করতে লাগলাম।

সফরের স্থান ও তার বর্ননাঃ

ঠিক ১টার পর বাস গাজিপুর রিসোর্টে পৌছাল। আমরা সবাই বাস থেকে নেমে রিসোর্টে প্রবেশ করে দেখি অনেক সুন্দর একটা পরিবেশ যেখানে আমরা একটা বড় বাড়ি,সুইমিং পুল,মাঠ,পুকুর দেখতে পেলাম। সবাই পুরো রিসোর্টে আনাচেকানাচে ঘুরতে লাগলাম। ঠিক দুপুর ২টার পর সবাই গোসল করার জন্য সুইমিং পুলে নামলাম। সবার সেকি  কি লাফালাফি,ডুবাডুবি সবাই অনেক মজা করলাম গোসল করতে গিয়ে। গোসল শেষ করার পর টিচার আমাদের দুপুরের খাবারে জন্য ডাক দিলেন,সবাই নিজের খাবার নিয়ে সিরিয়ালে বসে পড়লাম। খাবার শেষে বিকালে আমাদের জন্য একটা খেলার আয়োজন করা হলো। বিজয়ীদের পুরস্কার দেয়া হলো।

আমরা ফুটবল নিয়ে গিয়েছিলাম। তাই মাঠে ২টিম গঠন করে যে যার মতো ফুটবল খেলতে নেমে গেলাম। বিকালের দিকে সন্ধ্যা ৬টা বাজে হওয়ার কিছু সময় আগে টিচাররা বাসে ফিরে যেতে বল্লো। সবাই তখন মিস করা সে সময় নিয়ে বাসে গিয়ে বসলো।

বাসায় ফিরার পথেঃ

বাস রওনা দিলো ঢাকার উদ্দেশ্য। বাসে আসার সময় শুরু হলো টিচার দের সাথে কুইজ প্রতিযোগিতায়। এমনকি টিচার রা অনেক গল্প,মজা করলেন আমাদের সাথে। সবশেষ যাদের বাসা যে এলাকায় বাস সেখানে নামিয়ে দেয়ার চেস্টা করলো। বাসায় ফিরে আপসোস করে মিস করতে লাগলাম আনন্দময় মুহুর্তগুলো।

উপসংহার

এই শিক্ষা সফরের থেকে আমি আমার জিবনের সফরের গুরুত্ব উপলব্ধি করতে পারলাম। শিক্ষা সফর জীবনে নতুন করে অনেক কিছু জানার সুযোগ দেয় । আমাদের জ্ঞানের পরিধিকে বড় করে। 

 

4728dbbc5c6763f37c33f5ebb100ad9e?s=150&d=mm&r=g

Tanvir Brain

 themarketerbd@gmail.com  https://www.monsterbangla.com

We will be happy to hear your oughts

Leave a reply

Monster Bangla
Logo
Compare items
  • Total (0)
Compare
Shopping cart